রবিবার; ১৬ জুন, ২০২৪ খ্রি. Dashboard

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন দিন
সর্বশেষ :
হু হু করে বাড়ছে তিস্তার পানি, নদীপাড়ে আতঙ্ক কুড়িগ্রামের উলিপুরে নিরাপত্তা নিশ্চিতে ৩২টি সিসি ক্যামেরা বসালো পুলিশ ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে কুড়িগ্রামে ব্যস্ত সময় পার করছেন কামারেরা কুড়িগ্রামে বিভিন্ন পশুর হাটে জেলা পুলিশের নিরাপত্তা জোরদার কুড়িগ্রামের চর রাজিবপুরে সরকারি বিতরণকৃত চাল জব্দ
16 December

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

সীতাকুণ্ডে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নবীন-প্রবীণ নেতার মধ্যে লড়াই

প্রকাশিত: সোমবার; ৬ মে, ২০২৪ খ্রি. - ১২:০৪ এ.এম. | দেখেছেন: ১২৩ জন।

সীতাকুণ্ডে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের নবীন-প্রবীণ নেতার মধ্যে লড়াই

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

রাফি চৌধুরী,

সীতাকুণ্ড প্রতিনিধিঃ

 

 

 

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন আগামী ৮ মে'২৪ ইং  সীতাকুণ্ড উপজেলা পরিষদ নির্বাচন।  

এই নির্বাচনে যদিও দলীয় কোনো প্রার্থী ঘোষনা না করলেও   প্রার্থীগন সকলেই আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী। তারা স্থানীয় সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের সমর্থক।   

 

প্রার্থীদের সমর্থনকারীদের আশির্বাদ নিয়ে দ্বারে দ্বারে ধরনা দিয়ে বিগত দিনে দলের প্রতি নিজেদের অবদান তুলে ধরে  ভোট যাচ্ছেন । অবশ্য বর্তমান অবস্থান থেকে সবাই ধারণা পেয়েছেন নির্বাচনে এবার চেয়ারম্যান পদে লড়াই হবে প্রবীণ ও নবীনের মধ্যে ।

 

উপজেলা চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মহিউদ্দিন আহমেদ মঞ্জু( দোয়াত কলম) এবং  বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আরিফুল আলম রাজু ( আনারস)। তাছাড়া উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ ) পদে নির্বাচন করছেন সলিমপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মহিউদ্দিন( উড়োজাহাজ)  ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জালাল আহম্মদ (টিউবওয়েল) ।  নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন সীতাকুণ্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদিকা শাহিনুর আক্তার বিউটি( পদ্মফুল), উপজেলা শ্রমিক লীগের মহিলা সম্পাদিকা শামীমা আক্তার লাভলী( হাঁস) ও মহিলা নেত্রী হামিদা আক্তার( ফুটবল)।

 


নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী প্রার্থীদের সাথে আলাপ এবং বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, এবার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থী চট্টগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মহিউদ্দিন আহমেদ মঞ্জু দীর্ঘদিন ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। তিনি ১৯৮২ সালে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সীতাকুণ্ড ডিগ্রি কলেজের ভিপি ছিলেন । 

পরে তিনি জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তাছাড়া ১৯৯১ সাল থেকে ১৭ বছর সৈয়দপুর ইউনিয়নের জনপ্রিয় চেয়ারম্যান ছিলেন। মহিউদ্দিন মঞ্জু ১৯৯৬ সাল থেকে প্রতিটি জাতীয় নির্বাচনে সংসদ সদস্য পদে দলের মনোনয়ন চেয়ে আসছেন।

 

মহিউদ্দিন আহমেদ মঞ্জু বলেন,  আমি দীর্ঘদিন ধরে সীতাকুণ্ডে আওয়ামী লীগ রাজনীতি করে যাচ্ছি।  আমি প্রায় ১৭ বছর ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান হিসেবে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছি।কারো প্রভাব না খাটালে ইনশাআল্লাহ আমি বিজয় হবো।

 

অন্যদিকে তার একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী আরিফুল আলম চৌধুরী রাজু ১৯৯২ সালে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যুক্ত হন। ২০০৩ সাল থেকে ২০১৩ পর্যন্ত তিনি বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ২০১৩ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত ছিলেন সভাপতি। বর্তমানে দ্বিতীয় মেয়াদে তিনি সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।


তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় কাজ করে যাচ্ছি।


অবশ্য সীতাকুণ্ডের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন , বয়স ও রাজনীতিতে কনিষ্ঠ হলেও রাজু চৌধুরী বর্তমান সংসদ সদস্য এস এম আল মামুনের বিশ্বস্ত হওয়ায়  তার বিজয় নিশ্চিত মনে করেন।


তবে জেলা আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন মঞ্জু দলের দীর্ঘদিনের ত্যাগী ও পরীক্ষিত সিনিয়র নেতা। নির্বাচনে যেহেতু অন্য দলগুলো অংশ নিচ্ছেনা সেহেতু ভোট পড়বে আওয়ামী লীগ সমর্থক ও  ভাসমান কিছু ভোটারের। নির্বাচন সুষ্ঠু হলে  ফলাফল  মহিউদ্দিন মনজুর বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবেনা বলে অনেকেই মনে করেন।

 

এস এম আল মামুন এমপি  বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবার জন্য নির্বাচনকে উন্মুক্ত করে দিয়েছেন। তাই আওয়ামী লীগ সমর্থিত একাধিক প্রার্থী থাকতে পারে। তাছাড়া নির্বাচন আচরণবিধিতে স্থানীয় সংসদ সদস্যদের এ নির্বাচনে প্রভাব কাটানোর কোন সুযোগ নেই। তিনি মনে করেন, নির্বাচন সুষ্ট ও গ্রহণ যোগ্য হবে। 


সীতাকুণ্ডে বিগত দুই নির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান সাংসদ এসএম আল মামুন। 


বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দায়িত্বে আছেন জয়নব বিবি জলী।

 

এদিকে নির্বাচন প্রসঙ্গে সীতাকুণ্ড উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ডা. কমল কদর বলেছেন, এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্তে অটল রয়েছে বিএনপি। তাই দলীয়ভাবে কোনো প্রার্থী কে বিএনপি সমর্থকরা ভোট দিতে কেন্দ্রে যাবেনা।

 

সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, সীতাকুণ্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৩২০১৯৩। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ১, ৬৭, ৩৮৩ এবং মহিলা ভোটার ১, ৫০, ৭০৯ ও তৃতীয় লিঙ্গের একজন ভোটা রয়েছে। মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৯২ ও বুথ রয়েছে ৬৮৭।


সরেজমিনে ঘুরে জানা গেছে,উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বর্তমান এমপি একটি প্যানেল দিয়েছে,তাঁর প্যানেলে রয়েছে চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ আরিফুর রহমান রাজু চৌধুরী,ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী গোলাম মোস্তফা,মহিলা ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহিনুর আক্তার বিউটি।


এদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল বাকের ভূইয়া ও সাবেক এমপি দিদারুল আলম দিদারের সমর্থিত প্রার্থীগন হলেন, চেয়ারম্যান প্রার্থী মহিউদ্দিন আহমেদ মন্টু,ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী জালাল আহমেদ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী শামিমা আক্তার লাভলী।


যদিও এবিষয়ে প্রকাশ্যে এমপি মামুন ঘোষনা না দিলেও তা ওপেন সিক্রেট হয়ে গেছে,অপরদিকে উপজেলা সভাপতি বাকের ভূইয়া তার সমর্থীতদের নিয়ে ইতিমধ্যে সভা সমাবেশ  করে বিজয়ের আহবান জানান। 


৪র্থ সীতাকুণ্ড উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ২০১৪


কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফল মোট ৮২ কেন্দ্র


১.এস এম আল মামুন-৩৯২৭৬ভোট
২.কাজী সালা উদ্দিন-৩৬১৩৮ভোট
৩-এড.মোস্তফা নূর-১৮৫০৪ ভোট
৪.মোস্তফা কামাল চৌধুরী-১৫৮৫৪ভোট
৫.দিদারুল ইসলাম মাহমুদ চৌধুরী-৬৪০৭ ভোট
৬.মহীউদ্দিন আহমেদ মঞ্জু-৪৩৪৪ ভোট
৭.আলেকজান্ডার চৌধুরী-২৪৩ভোট


এস এম আল মামুন-৩১৩৮ ভোটে জয় লাভ করেছিলেন।

 

 

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন